রাস্তায় যানজট আছে মাথায় রেখেই ঘর থেকে বের হবেন: ওবায়দুল কাদের

রাস্তায় যানজট আছে মাথায় রেখেই বের হবেন - ওবায়দুল কাদের

স্বাধীন কন্ঠ ডেস্কঃ আগামী দুই বছরের মধ্যে রাজধানী ঢাকার যানজট পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘এই সময় পর্যন্ত রাস্তায় যানজট আছে সেটা মাথায় রেখেই ঘর থেকে বের হতে হবে।’

আজ শুক্রবার বিকালে রাজধানীর সায়েদাবাদে সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ে এক মালিক-শ্রমিক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘২০১৮ সালে রাজধানীতে মেট্রোরেল হচ্ছে, অ্যালিভেটের এক্সপ্রেসওয়েও হচ্ছে। এছাড়াও অবৈধ কিছু যান চলাচল করছে এগুলো নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে। এতে যানজট অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আসবে।’

এছাড়া রাজধানীতে গণপরিবহনে বিশৃঙ্খলা নিয়েও কথা বলেন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তবে এর অবসান কবে হবে তা আদৌ হবে কি না, এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো বক্তব্য দেননি তিনি।

মন্ত্রী বলেন, ‘এখন রাজধানীতে গাড়ির গায়ে সিটিং সার্ভিস লেখা থাকে। লিখে রাখে সিটিং সার্ভিস কিন্ত ভেতরে দেখা যায় চিটিং সার্ভিস। ইদানীং আরও লেখা থাকে আল্লাহর কসম সিটিং সার্ভিস। কিন্তু ভেতরে গিয়ে দেখা যায় মহিলাসহ যাত্রীরা দাঁড়িয়ে আছেন।’

পরিবহনের শৃঙ্খলা রক্ষাকে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন ওবায়দুল কাদের। বলেন, ‘আল্লাহর নামে চলিলাম লিখে রাখলেই হবে না। ড্রাইভারদের সাবধান না হলে হয় গাড়ি আইল্যান্ড দিয়ে যাবে, নয়তো মানুষের উপর দিয়ে ওঠে যাবে।  যে নিজেকে সাহায্য করে না, আল্লাহও তাকে সাহায্য করে না।’

চালকদের সতর্ক হওয়ার অনুরোধ করে সড়কমন্ত্রী বলেন, ‘চালকদের মাথা ঠান্ডা করে গাড়ি চালতে হবে। গাড়িতে ওঠার আগে সব ঠিকঠাক আছে কি না সব দেখে নিতে হবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘সড়কে ইজিবাইক, নসিমন-করিমন চলছে। এতে রাস্তার শৃঙ্খলা থাকছে না। এজন্যই দুর্ঘটনা ঘটছে।’ তিনি বলেন, ‘গরিব মানুষ ইজিবাইক, নসিমন, করিমন চালায় বলে এটা বন্ধ করা যাবে না- এটা আমি মানতে পারব না। আগে জীবন, তারপর জীবিকা। জীবন চলে গেলে জীবিকা দিয়ে কী হবে।’

সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম হাজারী, ফেনী পৌরসভার মেয়র আলাউদ্দিন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, বাস-ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি আবুল কালাম প্রমুখ।

Post Author: shadhinkantho

Leave a Reply